Home / মিডিয়া নিউজ / বিয়ের পর শুটিং করতে খুব লজ্জা লাগছিল : টয়া

বিয়ের পর শুটিং করতে খুব লজ্জা লাগছিল : টয়া

সদ্য বিয়ের পিড়িতে বসেছেন বাংলাদেশের বর্তমান সময়ের নাটকের অন্যতম জনপ্রিয় অভিনেত্রী

মুমতাহিনা টয়া। দীর্ঘ দিনের প্রেমের সম্পর্ককে বিয়েতে পরিনীত করেছেন টয়া। বিয়ে করেছেন নিজের

সহকর্মি শাওনকে। আর বিয়ের পর সব আনুষ্ঠানিকতা সেরে আবারও কাজে যোগ দিয়েছেন এই

অভিনেত্রী। জানাচ্ছিলেন বিয়ের পর প্রথমবারের মত কাজে যোগ দেবার কথা। বিয়ের পরপরই প্রথম নাটকে ’মা’ ডাক শুনতে কেমন লাগছে? এমন অনুভূতি জানাতে গিয়ে লজ্জায় লাল হয়ে যাচ্ছিলেন টয়া।

পুবাইলে চলছিল শুটিং। অভিনয়শিল্পীর কাজ অভিনয় করা। কিন্তু পরিস্থিতির সঙ্গে পরিস্থিতি যোগ করে দিলে যা হয়, টয়ার ক্ষেত্রেও তা–ই হলো। ফোনে সেই ’মা’ ডাক নিয়ে প্রশ্নটা করতেই হাসিতে ফেটে পড়েন টয়া। হাসতে হাসতেই তিনি বলেন, ’তেমন কিছুই মনে হচ্ছে না। মায়ের চরিত্রে অভিনয় করছি, চরিত্রের মধ্যেই আছি। আলাদা কোনো অনুভূতি নেই। সব সময় যেমন অভিনয় করতাম, তেমন। তবে বিয়ের পর স্বামীর সঙ্গে শুটিং করতে খুব লজ্জা লাগছিল। আজ শুটিংয়ে স্বামী থাকলে হয়তো খুব মজা লাগত।’

বিয়ের তিন দিন পরই প্রথম একসঙ্গে ’পরের মেয়ে’ নামের একটি ধারবাহিক নাটকে শুটিং করেছেন বর শাওনের সঙ্গে। একসঙ্গে বিয়ের আগেও অনেক নাটকে কাজ করেছেন তাঁরা। বিয়ের পর প্রথম যেদিন ক্যামেরার সামনে দাঁড়ালেন, লজ্জায় কাঁচুমাচু হয়ে যাচ্ছিলেন টয়া। সেদিনের অভিজ্ঞতা শেয়ার করে টয়া বলেন, ’শুটিংয়ে আমি আর শাওন একই রকম পোশাক পরেছিলাম। বাস্তবে আমরা নতুন কাপল, সেই নাটকেও কাপল! মেকআপ রুমে বসেই আমি লজ্জায় শেষ। বারবার হাসছিলাম। প্রথম শটে ক্যামেরার সামনে দাঁড়িয়ে দেখি, শুটিং ইউনিটের সবাই আমাদের দিকে হাঁ করে তাকিয়ে ছিল। নির্মাতা মিটমিট করে হাসছিলেন। পরে দেখি, সবার কৌতূহলী চোখ আমাদের দেখছে। তখন নাটকের ডায়ালগ দিতে প্রচণ্ড লজ্জা লাগছিল।’ তবে সেই শট দ্বিতীয়বার দিতে হয়নি তাঁদের।

টয়ার বর শাওন আহমেদ পাইলট। দুজনই এমন ব্যস্ত যে নিজেদের মধ্যে ঠিকমতো কথা হচ্ছে না। তা ছাড়া দুজন যখন অবসরে থাকেন, তখন দুজনের অবস্থান পৃথিবীর দুই প্রান্তে। তাঁদের কথা বলার সময়ও খুব একটা হয় না। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে খুদে বার্তা পাঠিয়ে পরস্পরের খোঁজখবর নেন এই তারকা দম্পতি। শাওনের সঙ্গে কথা বলতে না পেরে বেশ মনঃক্ষুণ্ন টয়া। তিনি বলেন, ’খুব কষ্টে আছি ভাই। মাঝেমধ্যে আমাদের মধ্যে কথাই হয় না। মাঝেমধ্যে এমনও হয়, আমি যখন জেগে থাকি, সে তখন ঘুমায়। শাওন যখন জেগে থাকে, আমি ঘুমে থাকি।’

এ বছর লিপ ইয়ারে বিয়ে করেছেন টয়া ও শাওন। এরপর থেকেই আলোকচিত্রীর দল তাঁদের পিছু ছাড়ছে না। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তাঁদের বিয়ের কোনো ভিডিও দিলেই বাজে মন্তব্যের স্বীকার হচ্ছেন এই দম্পতি। সেই মন্তব্যে প্রথম দিকে মন খারাপ হলেও এখন গা সয়ে গেছে। কী মন্তব্য? টয়া বলেন, ’তারকাদের বিয়ে নিয়ে যা হয়। অনেকে ফেসবুকের সেসব মন্তব্যে লিখছে, আমাদের বিয়ে কয় দিন টিকবে, এক বছরের বেশি টিকবে না, শিগগির শুনতে হবে বিয়ে ভেঙে গেছে, বিয়ে নিয়ে এত মাতামাতির কী আছে… এসব। অতীতে অনেক তারকার ঘর ভেঙে যাওয়ার উদাহরণ টেনে আনছেন অনেকে। এমন তো না যে তারকা ছাড়া কারও বিয়ে ভাঙে না।’ এসব মন্তব্য নিয়ে তাঁদের বন্ধুমহলে বেশ মজাও হচ্ছে। কাছের বন্ধুরা ফেসবুকের মন্তব্য দেখে জিজ্ঞাসা করছেন, ’কী রে, তোদের প্রথম বিয়ে কেমন চলছে?’ বলে হাসতে থাকেন টয়া।

প্রসঙ্গত, শাওনের সাথে টয়ার সম্পর্ক অনেক দিনের। সম্পর্কের শুরুটা হয়েছিল একটি স্বল্পদৈর্ঘ সিনেমাতে অভিনয় করতে গিয়ে। প্রথম দেখা তখন পরিনীত হয় বন্ধুত্বতে। এর পর এক সাথে অনেক ঘোরাঘুরি সময় কাটিয়েছেন তারা। এর পর শুরু হয় তাদের প্রেমের সম্পর্ক। আর এই প্রেমের সম্পর্ক তৈরী হবার পর ৪ মাসের মাথায় শাওন পারিবারিক ভাবে প্রস্তাব দেয় টয়াকে। এর পর তাদের দুজনের ৪ হাত এক হতে আর বেশিদিন সময় লাগেনি।

About Nusraat

Check Also

‘আমি কোনো ফকিরনি পরিবারের মেয়ে না’, নীলা চৌধুরীকে শাবনূর

চিত্রনায়ক সালমান শাহর মৃত্যুর ২৪ বছর পর পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *