Home / মিডিয়া নিউজ / যেহেতু আমি মারা যাইনি, তাই এখন জীবিত ডাইনি হয়ে গেছি : বাঁধন

যেহেতু আমি মারা যাইনি, তাই এখন জীবিত ডাইনি হয়ে গেছি : বাঁধন

‘রেহানা মরিয়ম নূর’, চলচ্চিত্রের মধ্য দিয়ে দর্শকদের মাঝে ব্যাপক পরিচিতি পেয়েছেন বাংলাদেশের

অন্যতম জনপ্রিয় অভিনেত্রী আজমেরী হক বাঁধন। বলা যায়, এই চলচ্চিত্রের মাধ্যমেই বড় পর্দায়

নিজেকে সফল ভাবে মেলে ধরতে সক্ষম হয়েছেন তিনি। তবে বর্তামনে এই জায়গা আসাটা গুণী

এই অভিনেত্রীর জন্য সহজ কোনো বিষয় ছিল না। একটা সময়ে হাতাশা ও কষ্টে আত্মহননের পথ বেছে নিয়েছিলেন তিনি।

হ্যাঁ আজমেরি হক বাঁধনের এখন বলার মতো অনেক গল্প কিংবা বাঁধনকে নিয়েই এখন অনেক গল্প। গল্পের বাইরে আবার উপস্থিত হয় গসিপ। বাঁধন তাঁর গল্পের পেছনের গল্পগুলো ভাগাভাগি করলেন গত সন্ধ্যায়, গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে।

‘রেহানা মরিয়ম নুর’ এর সফলতার রেশ না কাটতেই ছুটে গিয়েছিলেন মুম্বাই। বলিউডের নির্মাতা বিশাল ভরদ্বাজের ‘খুফিয়া‘ সিনেমার শুটিং করে ঢাকায় ফিরেছেন বাঁধন। ছবির সহপ্রযোজনা প্রতিষ্ঠান সেন্সমেকারস প্রোডাকশনের গুলশানে ১ নম্বরের অফিসে সে আড্ডায় জানালেন চেনা গল্পের অচেনা রঙগুলো। অবশ্য বিসিএস প্রসঙ্গও বাদ পড়েনি আড্ডায়। কেননা ৪৩ তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় দু’দুটি প্রশ্ন এসেছে।

কানের লাল গালিচা, বলিউড এসবের মধ্যে ‘ইনসাইড পিস’ কী পেলেন বাঁধন? বাঁধনের ভাষ্য, ‘এখন যখন সবই আমাকে বলেন, বাঁধন এখন তোমার এতো এতো অ্যাচিভমেন্ট, তুমি এতো এতা কিছু করে ফেলতেছো, তুমি কানে চলে গেছো, তুমি বলিউডের বিশাল ভরদ্বাজের কাজ করছো। তোমাকে নিয়ে এতো আলোচনা হচ্ছে, এতো বড় একটা অ্যাওয়ার্ডের জন্য নমিনেশন পেয়েছো। কিন্তু আমার সবচেয়ে বড় অর্জন হচ্ছে আমার মেয়ে আমাকে হেরে যেতে দেখছে না। আমি মনে করি, এটাই আমার বড় প্রাপ্তির জায়গা।’

কান থেকে ফেরার পর মেয়ের অভিব্যক্তি কী? বাঁধন চোখে মুখে তৃপ্তির উজ্জ্বলতা ছড়িয়ে বললেন, ‘আমার মেয়ে আমাকে বলতেছে মা তুমি সেলিব্রেটি হয়ে গেছ। সারাদিন টেলিভিশনে তোমার কথা বলতেছে। মা তুমি অনেক বড় কিছু হয়ে গেছে। তার উচ্ছ্বাস অন্যরকম।’

আজ এই বাঁধন হয়তো না থাকতে পারতেন। অন্ত সেটাই বললেন। কেননা লাক্স তারকা হবার পূর্বে পারিবারিক সহিংসতার শিকার হয়েছিলেন তিনি। শুধু তাই নয় বাঁধন বলেই ফেললেন ‘আমি সুইসাইডাল ছিলাম।’ আত্মহনন করতে গিয়েছিলেন? প্রশ্নটা কোনো সহকর্মী করে বসলো। বাঁধনের দ্বিধা নেই বলতে। বাঁধন বলেন, ’এসব বলতে এখন আর আমার ভয় নেই। কারণ আমি আর এখন আগের দুর্বল বাঁধন নই।’

সেটা ২০০৫ সালের কথা। বাঁধন বলেন, ‘সে সময় আমার সঙ্গে অনেক অবিচার হয়েছে, এবং পারিবাহিকভাবে অনেক সহিংসতার শিকার হয়েছি। সে কারনেই আমি দুইবার আত্মহননের চেষ্টা করেছি। তাই সব মিলিয়ে সে সময়টা আমার জন্য খুবই কঠিন একটা সময় ছিলো। তখন যদি আমি মরে যেতাম অনেক নিউজ হতো। যে যুদ্ধ করতে করতে মরে গেলো মেয়েটি,। নির্াতিত হতে হতে মারা গেলো। যেহেতু আমি মারা যাইনি তাই আমি মনে করি এখন জীবিত ডাইনি হয়ে গেছি।’

বাঁধন বলেন, আমার বাচ্চাকে নিয়ে অনেক ঝামেলার মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে আমাকে। তখন আমার হাতে দুই বছর ছিল। ভাবলাম আর যা আছে কপালে এবার আমি বিসিএস দিবোই। ফাইনালি আমি সিদ্ধান্ত নিলাম। আমার নিজের ওপর যত না কনফিডেন্স, তারচেয়ে বেশি কনফিডেন্স আমার শিক্ষকদের, আকমার ফ্রেন্ডদের। কেননা আমি পড়াশোনায় খুবই ভালো ছিলাম। তারা বললো তুমি দিলেই হয়ে যাবে। কোচিং সেন্টারে ভর্তিও হয়েছি। ফরম পূরণের সময় আমি প্রথম পছন্দ পুলিশ দিয়েছি, সেকেন্ড, সেটাও পুলিশ, আমি জিজ্ঞেস করলাম তিনটাই কি পুলিশ দেওয়া যায়? আমাকে বললো যায় না। যাই হোক ওই পড়ার ভলিয়ুম দেখে, আর আমার বাচ্চাকে লালন পালন তাছাড়া টাকাও ইনকাম করতে হবে। যার কারণে বিসিএসটা দেওয়া হয়নি। বাট ওই পরীক্ষায় আমার নাম থাকবে, আমার অভিনীত সিনেমার নাম থাকবে- এটা আমি কল্পনাও করিনি।

ট্রলকারীদের উদ্দেশ্য বাঁধন বলেন, যারা এটা নিয়ে ট্রল করতেছে, হাসাহাসি করতেছে তাদের বোঝার জন্য এটার ভেতর দিয়ে তো যেতে হবে। মানে এই অনুভূতি বোঝার জন্য এই সিচুয়েশনটার ভেতর দিয়ে যেতে হবে। এটার সৌভাগ্য তো সবার হয় না। যারা জানেনা না, বা বোঝেন না হয়তো তারাই এমনটা করতেছে।

প্রযোজক এহসানুল হক বাবু জানিয়েছেন, চলতি মাসের আগামী ১২ নভেম্বর বাংলাদেশে মুক্তি পেতে যাচ্ছে ’রেহানা মরিয়ম নুর’ এ সিনেমাটি। এদিকে ইতিমধ্যে সিনেমাটি নিয়ে বেশ কৌতল ভক্ত ও অনুরাগীরা। এছাড়াও অনেকেই মনে করছেন, এটি দর্শকদের মাঝে সাড়া ফেলবে।

About Nusraat

Check Also

‘আমি কোনো ফকিরনি পরিবারের মেয়ে না’, নীলা চৌধুরীকে শাবনূর

চিত্রনায়ক সালমান শাহর মৃত্যুর ২৪ বছর পর পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *